দুই দিনের পরিবহন ধর্মঘটে পর্যটকশূন্য হয়ে গেছে কুয়াকাটা।

বরিশাল জেলা বাস মালিক সমিতির দুই দিনের ধর্মঘটের ঘোষণায় পর্যটক শূন্য হয়ে পড়েছে পটুয়াখালীর কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত। আগামীকাল ৪ নভেম্বর থেকে ৫ নভেম্বর পর্যন্ত এই পরিবহন ধর্মঘট চলবে।

দুই দিনের পরিবহন ধর্মঘটে পর্যটকশূন্য হয়ে গেছে  কুয়াকাটা।

এদিকে আগামী ৫ নভেম্বর বরিশালের বঙ্গবন্ধু উদ্যানে (বেলস পার্ক) বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ হওয়ার কথা রয়েছে। হোটেল-মোটেল অ্যাসোসিয়েশন ব্যবসায়ীরা বলছেন- বিএনপির গণসমাবেশের কারণে ডাকা এ ধর্মঘটে পর্যটকশূন্য কুয়াকাটা।

ট্যুরিস্ট বোট মালিক সমবায় সমিতি লিমিটেডের সাধারণ সম্পাদক কেএম বাচ্চু ঢাকা পোস্টকে বলেন, পরিবহন ধর্মঘটের কারণে প্রায় ৬০ শতাংশ পর্যটক কমেছে। এতে ব্যাপক লোকসানের মুখে পড়বেন পর্যটন ব্যবসায়ীরা। পর্যটক এবং ব্যবসায়ীদের এই দিকটি  বিবেচনা করে খুব  দ্রুত ধর্মঘট প্রত্যাহার করে স্বাভাবিক পরিবেশ ফিরিয়ে দেওয়ার জোর দাবি জানাচ্ছি ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে।

ট্যুর অপারেটর অ্যাসোসিয়েশন অব কুয়াকাটা (টোয়াক) সভাপতি রুমান ইমতিয়াজ তুষার বলেন, আমাদের অনেক বুকিং ফিরিয়ে নিচ্ছেন পর্যটকরা। সপ্তাহের মধ্যে শুক্রবার ও শনিবার বেশি বুকিং থাকে। আর এই দুই দিন ধর্মঘটের কারণে আমাদের হোটেল গুলো অনেক বড় ক্ষতির মুখে পড়ে গেছে । 

কুয়াকাটা হোটেল-মোটেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোতালেব শরীফ ঢাকা পোস্টকে বলেন, সাপ্তাহিক ছুটিতে কুয়াকাটায় ১৫ থেকে ২০ হাজার পর্যটক দূর-দূরান্ত থেকে এসে থাকেন। এই পরিবহন ধর্মঘটের কারণে সেখানে পর্যটক ২ থেকে ৩ হাজার হবে না। ইতোমধ্যে যারা বুকিং দিয়েছেন তারাও বুকিং ফিরিয়ে নিচ্ছেন ধর্মঘটের কারণে।