বোটানিক্যাল গার্ডেনে কমেছে দর্শনার্থী

একসময়ের ব্যস্ততম উদ্যান ছিল রাজধানীর মিরপুরের বোটানিক্যাল গার্ডেন। শহুরে জীবনের মাঝখানে এক টুকরো সবুজ এই উদ্যানে বিভিন্ন ছুটির দিনে মানুষ প্রিয়জন ও পরিবার নিয়ে ছুটে যেত। বিনোদনের এই অতিপ্রিয় জায়গাটুকু দিন দিন তার সকীয়তা হারাচ্ছে। কমতে শুরু করেছে দর্শনার্থীর সংখ্যা। কিন্তু কেন এই অবস্থা হলো, তা জানা যায় দর্শনার্থী ও কর্তৃপক্ষ।

বোটানিক্যাল গার্ডেনে  কমেছে দর্শনার্থী

বাংলাদেশে উদ্ভিদ প্রজাতি সংরক্ষণ, গবেষণা ও প্রদর্শনের সবচেয়ে বড় কেন্দ্র ন্যাশনাল বোটানিক্যাল গার্ডেন (জাতীয় উদ্ভিদ উদ্যান)। ১৯৬১ সালে রাজধানীর মিরপুরে প্রায় ২০৮ একর জায়গার ওপর উদ্যানটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উদ্যানটির আধুনিকায়নে গত বছরের ৭ জুলাই সরকার মাস্টারপ্ল্যানের অনুমোদন দিলেও এখন পর্যন্ত উল্লেখযোগ্য কোনও পরিবর্তন আসেনি। তাই এর প্রভাব পড়েছে দর্শনাথীদের ওপর।

শুক্রবার (১৪ অক্টোবর) সরেজমিনে বোটানিক্যাল গার্ডেনে সেই চিত্রই যেন দেখা গেলো। ছুটির দিন হলেও উদ্যানে দর্শনার্থীদের উপস্থিতি ছিল কম। বিকালের দিকে দর্শনার্থীর সংখ্যা কিছুটা বাড়লেও তা আশানুরূপ ছিল না বলে জানিয়েছেন টিকিট বিতরণের দায়িত্বে থাকা  এক ব্যক্তি।

তিনি বলেন, শুক্রবার বলে কিছুটা দর্শনার্থী এসেছেন। অন্যান্য দিন তা-ও আসেন না। উদ্যানের পাশেই চিড়িয়াখানা থাকায় ওখানে যেতেই দর্শনার্থীদের আগ্রহ বেশি।

জানা গেছে, বিশাল এ উদ্যানে নাগরিক নানা সুবিধার অভাব থাকায় এখানে আগের মতো ভিড় জমে না। বিশ্রামের জায়গার অভাব, নিরাপত্তারক্ষীর স্বল্পতা, পাবলিক টয়লেটের অভাবের কারণে দর্শনার্থীরা এ উদ্যানমুখী হন না।

শুক্রবার বিকালে এক দর্শনার্থীর সঙ্গে কথা হয় বলেন, ‘উদ্যানের বিভিন্ন জায়গায় লেখা, বসার স্থান ছাড়া অন্য কোথাও বসবেন না। কিন্তু বসার স্থানই তো নেই। যা আছে তা খুঁজে বের করতে হয়। তার ওপর সেগুলোর বেশির ভাগই বসার উপযোগী না।’

সরেজমিনে আরও দেখা যায়, শুধু বসার স্থান নয়, উদ্যানে পাবলিক টয়েলেটের স্বল্পতাও রয়েছে। যেগুলো রয়েছে, সেগুলোর আরও মেরামত প্রয়োজন। চারপাশের পরিবেশটাও পরিচ্ছন্ন নয়, যা দর্শনার্থীদের বিরক্তির কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

উদ্যানের ভেতরে আগের মতো বিভিন্ন হকার বা ব্যক্তি দ্বারা হয়রানির শিকার না হওয়ায় স্বস্তি প্রকাশ করেন কোনও কোনও দর্শনার্থী। তবে তাদের অভিযোগ আছে দর্শনার্থীবান্ধব পরিবেশ নিয়ে।

উদ্যানের কর্মীরা জানান, সকালের দিকে স্থানীয় বাসিন্দারা হাঁটাহাটির জন্য এলেও বিকালে বিভিন্ন স্থান থেকে দর্শনার্থীরা উদ্যান দেখতে আসেন। এসব দর্শনার্থীর বেশির ভাগ রাজধানীর বাইরে থেকে আসেন। ঢাকায় বেড়াতে এসে সুযোগ করে চলে আসেন উদ্যানে। নানা প্রজাতির গাছপালা দেখে আর সুন্দর সতেজ পরিবেশে ভ্রমণপিপাসা মিটলেও তাদের মাঝে রয়েছে বেশ অসচেতনতা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এর মূল কারণ হলো, উদ্যানের সচেতনতামূলক বিভিন্ন নির্দেশিকা তারা খেয়াল করেন না বা বোঝেন না। এ ছাড়া নির্দেশনা মানতে বাধ্য বা সতর্ক করার মতো পর্যাপ্ত লোকবলও নেই উদ্যান কর্তৃপক্ষের।

উদ্যানে সার্বক্ষণিক নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকেন আনসার সদস্যরা। এত বড় উদ্যান দেখভাল করার জন্য সদস্য সংখ্যা আরও বাড়ানো দরকার বলে তারা মতামত জানান।