রাজশাহীতে আ. লীগের জনসভা ৪ ফেব্রুয়ারি, যাবেন শেখ হাসিনা

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের রাজশাহীতে বিভাগীয় নির্বাচনি জনসভা হবে আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি। এতে সশরীরে বক্তব্য রাখবেন দলটির সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এটি আওয়ামী লীগের ২২তম জাতীয় সম্মেলনের পর প্রথম নির্বাচনি জনসভা।

রাজশাহীতে আ. লীগের জনসভা ৪ ফেব্রুয়ারি, যাবেন শেখ হাসিনা

সোমবার (২৬ ডিসেম্বর) রাতে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সভায় রাজশাহীতে এই জনসভার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সভায় উপস্থিত একাধিক নেতা  এ তথ্য নিশ্চিত করেন। সভায় সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা।

সূত্র জানায়, আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি ওই সভা সফল করতে বিভাগের পাঁচ সাংগঠনিক ইউনিটের বর্ধিত সভা হবে আগামী ৮ জানুয়ারি। এতে রাজশাহী মহানগর, রাজশাহী জেলা, নাটোর জেলা, চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও নওগাঁ জেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা অংশ নেবেন। এই বর্ধিত সভায় কেন্দ্রীয় নেতারাও উপস্থিত থাকবেন। তারা জনসভায় ব্যাপক জনসমাগম ঘটাতে প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দেবেন।

সূত্রমতে, আওয়ামী লীগের নতুন সভাপতিমণ্ডলীর প্রথম সভায় আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে সাংগঠনিক তৎপরতা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে সভায়। এ সময় দলের প্রেসিডিয়ামের উদ্দেশে দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য রাখেন দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা।

সভা শেষে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, সভায় জাতীয় ও আন্তর্জাতিক রাজনীতিসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। আমাদের সাংগঠনিক কর্মসূচি, পরবর্তী করণীয়, বিশেষ করে জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে সাংগঠনিক বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। প্রেসিডিয়ামের উদ্দেশে দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য রাখেন নেত্রী।

এই সভায় উপস্থিত ছিলেন সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী,  কাজী জাফর উল্লাহ, শেখ ফজলুল করিম সেলিম,পীযুষ কান্তি ভট্টাচার্য, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন,লে. কর্নেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খান, ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক, এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন,  মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া,শাজাহান খান, অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, জাহাঙ্গীর কবির নানক, মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, আব্দুর রহমান এবং  সিমিন হোসেন রিমি।